‘ত্রান প্রদানের মতো মহতী উদ্যোগে নেতাকর্মীদের মাঝে কোনও ধরনের বিভাজন বরদাস্ত করা হবে না’ – আফজালুর রহমান বাবু

স্টাফ রিপোর্টারঃ ময়মনসিংহ জেলা আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের কার্য্য-নির্বাহী কমিটির সহ-সভাপতি, সাংগঠনিক সম্পাদক ও সম্পাদক মন্ডলীর বিভিন্ন সদস্যবৃন্দ করোনা দুর্যোগ মোকাবিলাকে সামনে রেখে কি ভাবে দরিদ্র ও অসহায় মানুষজনের মাঝে ত্রাণ বিতরন করা যায় তা নিয়ে এক অনির্ধারিত (আন-অফিসিয়াল) আলোচনায় সভায় মিলিত হন। ময়মনসিংহ জেলা আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের সহ-স্বাস্থ্য বিষয়ক সম্পাদক আরিফ সিদ্দিকী সুমনের সভাপতিত্বে আলোচনা সভার প্রধান অতিথি ছিলেন ময়মনসিংহ সিটি কর্পোরেশনের ২৬ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগ কেন্দ্রীয় কমিটির সাবেক সহ-কর্মসংস্থান ও জনশক্তি বিষয়ক সম্পাদক মোঃ শফিকুল ইসলাম (শফিক)। বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের সদ্য সাবেক কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য আবু সাঈদ কাউসার (দীপু)। আলোচনা সভায় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন-  ময়মনসিংহ জেলা আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের কার্য্যনির্বাহী কমিটির সহ-সভাপতি অধ্যাপক মনোয়ার হোসেন খান (মিনার), সহ-সভাপতি মিলন আকন্দ, সাংগঠনিক সম্পাদক মাসুদ রানা আহমেদসহ প্রমূখ নেতৃবৃন্দ। আলোচনা সভাটি সঞ্চালনা করেন ময়মনসিংহ জেলা আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের যুব ও ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক এসএম নাসিম। মহানগরীর মাসকান্দায় অবস্থিত দীপ মাদকাসক্ত পুনর্বাসন কেন্দ্রের হলরুমে আলোচনা সভাটি অনুষ্ঠিত হয়। অনির্ধারিত (আন-অফিসিয়াল) এই আলোচনা সভার সভাপতি ও  ময়মনসিংহ জেলা আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের সহ-স্বাস্থ্য বিষয়ক সম্পাদক আরিফ সিদ্দিকী সুমন সভাস্থল হতে কেন্দ্রীয় আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারন সম্পাদক জনাব আফজালুর রহমান বাবুর সাথে ফোনে যোগাযোগ করলে তিনি সকলের উদ্দেশ্যে বলেন, ‘করোনা উদ্ভূত এই সংকটকালে মাননীয়া প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে আওয়ামী লীগ ও তার অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরা সারা দেশে যেভাবে দরিদ্রদের সহায়তায় এগিয়ে এসেছেন ঠিক সেভাবেই ময়মনসিংহ জেলা আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের সকল নেতাকর্মীদের এক পতাকাতলে ঐক্যবদ্ধভাবে ত্রাণ কার্য্যক্রমে অংশগ্রহন করতে হবে। ত্রান প্রদানের মতো মহতী উদ্যোগে নেতাকর্মীদের মাঝে কোনও ধরনের বিভাজন বরদাস্ত করা হবে না। এখন থেকে সংগঠনের জেলা শাখার সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকসহ অন্তত কমিটির সিংহভাগ নেতৃবৃন্দের উপস্থিতিতে ত্রাণ বিতরন করতে হবে। ত্রাণ বিতরনকালে অবশ্যই মনে রাখতে হবে কোনও অবস্থাতেই যেনো পাবলিক গ্যাদারিং তৈরী না হয় এবং সামাজিক ও শারীরিক দূরত্ব বজায় রেখে যেনো তা বিতরন করা হয়।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *