নারী মাদকাসক্ত সাত বছরে তিনগুণ

জিন্নাতুন নূরঃ সরকারি পর্যায়ে চিকিৎসাপ্রাপ্ত মাদকাসক্তদের নিরাময় কেন্দ্রের বহির্বিভাগে আট বছর আগে ২০১১ সালে কোনো নারী মাদকাসক্ত ভর্তি হননি। কিন্তু মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতরের সর্বশেষ বার্ষিক প্রতিবেদন অনুযায়ী,  ২০১২ সালে ৬২ জন নারী মাদকাসক্ত চিকিৎসার জন্য ভর্তি হন। ২০১৩ সালে এই সংখ্যা ছিল ১৯ জন, ২০১৪ সালে তা দাঁড়ায় ২৪ জনে। ২০১৫ সালে এই সংখ্যা ছিল তিনজন। ২০১৬ সালে ৪৩ জন। ২০১৭ সালে ২৮ জন। ২০১৮ সালে ৯১ জন আর ২০১৯ সালে মোট ১৭৭ জন নারী মাদকাসক্ত চিকিৎসার জন্য ভর্তি হন। গত সাত বছরে প্রায় তিনগুণ (২.৮৫) নারী মাদকাসক্ত মাদক নিরাময় কেন্দ্রে চিকিৎসার জন্য ভর্তি হয়েছেন।

দীর্ঘদিন ধরে সরকারি হাসপাতালগুলোতে নারী মাদকাসক্তদের চিকিৎসার জন্য আলাদা ব্যবস্থা না থাকলেও বিগত কয়েক বছরে নারী মাদকাসক্তের সংখ্যা বৃদ্ধি পাওয়ায় এখন এসব হাসপাতালে নারীদের জন্যও আলাদা বেডের ব্যবস্থা করা হয়েছে। আর বিশেষজ্ঞরা বলছেন, একসময় বাংলাদেশে নারী মাদকাসক্তদের চিকিৎসার বিষয়টি ‘সুপ্ত’ অবস্থায় থাকলেও এখন পরিবারের সদস্যরাও বিষয়টি আর না লুকিয়ে তাদের চিকিৎসা করাচ্ছেন।

Dip Add

মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতরের তথ্যে ঢাকার তেজগাঁওয়ের কেন্দ্রীয় মাদকাসক্তি নিরাময় কেন্দ্রে ১২৪টি বেডের মধ্যে বর্তমানে পুরুষদের জন্য ৯০টি, শিশুদের জন্য ১০টি আর নারী মাদকাসক্তদের জন্য ২৪টি বেড রয়েছে। অন্যদিকে বেসরকারিভাবে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতরের কাছ থেকে লাইসেন্স নিয়ে রাজধানী ঢাকায় ৬০-এর অধিক মাদক নিরাময় কেন্দ্র পরিচালিত হচ্ছে। সরকারি নিরাময় কেন্দ্রের তুলনায় এসব বেসরকারি নিরাময় কেন্দ্রে উল্লেখযোগ্য পরিমাণ নারী মাদকাসক্তরা চিকিৎসা নিচ্ছেন। আবার পারিবারিক ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন হওয়ার ভয়ে অনেক নারীকে তার পরিবার নিরাময় কেন্দ্রে নিয়ে যাচ্ছেও না।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *